কম্পিউটারের জন্য ৩টি সেরা ফ্রি এন্টিভাইরাস সম্পর্কে জেনে নিন

ফ্রি এন্টিভাইরাস

আজকাল আমরা কমবেশি সবাই কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকি এবং অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আমরা কম্পিউটারের হার্ডডিস্কে রেখে দিই। কোন কারণে কম্পিউটার ভাইরাস আক্রান্ত হলে এই গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে। যদি আমরা এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করি তাহলে আমাদের কম্পিউটারে থাকা গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো নিরাপদে থাকবে। কিন্তু টাকা দিয়ে এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার কেনা অনেকেরই সাধ্যের বাইরে।

তাই আজ আমি আপনাদের এমন কিছু ভালোমানের ফ্রি এন্টিভাইরাস সম্পর্কে বিস্তারিত বলব যে এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারগুলো আপনাদেরকে টাকা দিয়ে কিনতে হবে না। সম্পূর্ণ ফ্রিতে ডাউনলোড করে কম্পিউটারে ইন্সটল করলে আপনার পার্সোনাল কম্পিউটারে থাকা গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো নিরাপদে থাকবে। শুধু তাই নয় এই ৩টি সেরা ফ্রি এন্টিভাইরাস এর রয়েছে মোবাইল সংস্করণও যা আপনার পার্সোনাল কম্পিউটারের পাশাপাশি আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইলটিকেও সুরক্ষা প্রদান করবে। তবে বিস্তারিত আলোচনার আগে জেনে নেবো এন্টিভাইরাস কি এবং এন্টিভাইরাস এর কাজ কি।

এন্টিভাইরাস কি?

এন্টিভাইরাস হল একধরণের প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার যা কম্পিউটারকে ভাইরাস মুক্ত করতে সাহায্য করে। এন্টিভাইরাস কম্পিউটারের হার্ডডিস্কে থাকা তথ্যগুলোকে সুরক্ষিত রাখে। ফলে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো নষ্ট হওয়ার ভয় থাকে না। অনেক সময় ভাইরাস আক্রান্ত কম্পিউটার ঠিকঠাক কাজ করে না। কোন কোন সময় খুবই হ্যাং করে। এমনকি হার্ডডিস্ক পর্যন্ত নষ্ট হয়ে যায়। তাই আমাদের পার্সোনাল কম্পিউটারে এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ইন্সটল থাকা খুবই জরুরি।

এন্টিভাইরাস এর কাজ কি?

এন্টিভাইরাসের কাজই হল কম্পিউটারের হার্ডডিস্কে থাকা গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলোকে সুরক্ষা প্রদান করা। যাতে তথ্যগুলো নষ্ট বা চুরি না হয়ে যায়। এন্টিভাইরাস কম্পিউটারকে ভাইরাস অ্যাটাক হতে রক্ষা করে এবং ভাইরাসগুলোকে শনাক্ত করে সঙ্গে সঙ্গে মেরে ফেলে। এছাড়া এন্টিভাইরাস কম্পিউটারকে ঠিকঠাক ভাবে চালাতে সাহায্য করে যাতে ভবিষ্যতে হ্যাং এর মত পরিস্থিতির সম্মুখিন হতে না হয়। তবে এন্টিভাইরাস থেকে ভালো ফল পেতে হলে এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারগুলোকে নিয়মিত আপডেট করা খুবই প্রয়োজন।

৩টি সেরা ফ্রি এন্টিভাইরাসঃ

অনেকেই মনে করেন টাকা দিয়ে কেনা এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারগুলো ভালো সুরক্ষা দেয় এবং ফ্রি সফটওয়্যারগুলো ঠিক ভাবে কাজ করে না বা ভালো সুরক্ষা দেয় না এই ধারণা কিন্তু সম্পূর্ণ ভুল। ইন্টারনেট জগতে অনেক ফ্রি এন্টিভাইরাস পাওয়া যায়। তবে সব এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ভালো তাও কিন্তু সত্যি নয়।

বেশ কিছু এন্টিভাইরাস আছে যেগুলো আপনার কম্পিউটারকে ধীর করে দেয়। ফলে ইন্টারনেট ব্রাউজার বা কোন ফাইল খুলতে গেলে যথেষ্ট সময় লেগে যায়। আবার বেশ কিছু এন্টিভাইরাস আছে যেগুলো আপনার আড়ালে আপনার কম্পিউটারে থাকা গুরুত্বপূর্ণ অথ্যগুলো অন্যত্র পাচার করে দেয়। তাই এমন এন্টিভাইরাস থাকার থেকে না থাকাই ভালো। তবে এন্টিভাইরাস ব্যবহার করার আগে তার সম্পর্কে রিভিউ পড়ে নেওয়া জরুরি। আমার তালিকায় থাকা প্রত্যেকটি এন্টিভাইরাসই যথেষ্ট কার্যকর।

বিটডিফেন্ডার ফ্রি এন্টিভাইরাস Bitdefender Free Antivirus

আমার তালিকায় সবার উপরে থাকা বিটডিফেন্ডার এন্টিভাইরাসটি ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারের জগতে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি এন্টিভাইরাস। লাইটনিং ফাস্ট এই এন্টিভাইরাসটি তাড়াতাড়ি ডাউনলোড হয়ে ইন্সটল হয়ে যায় এবং আপনার পার্সোনাল কম্পিউটারকে ধীর না করেই দ্রুত গতিতে কাজ করে চলে। যে সকল ব্যক্তিরা গেম খেলেন, ছবি এবং ভিডিও এডিটিং এর মত ভারি কাজ করেন তারা কোনরূপ সমস্যা ছাড়াই এই এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে নিরাপদে কাজ করতে পারবেন।

পুরষ্কার প্রাপ্ত প্রযুক্তি দ্বারা তৈরি বিটডিফেন্ডার এন্টিভাইরাসের এই ফ্রি এডিশনে রয়েছে রিয়েল-টাইম হুমকি সনাক্তকরণ প্রযুক্তি এবং ভাইরাস স্ক্যানিং ও ম্যালওয়্যার অপসারণের মত প্রযুক্তি।

রিয়েল-টাইম হুমকি সনাক্তকরণ– এই প্রযুক্তিটি আপনার পার্সোনাল কম্পিউটারে থাকা সক্রিয় এপ্লিকেশনগুলোর গতিবিধির উপর ঘনিষ্ঠভাবে নজর রাখে এবং সন্দেহজনক যে কোনও কিছু শনাক্ত করে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নেয়।

ভাইরাস স্ক্যানিং ও ম্যালওয়্যার অপসারণ- এই শক্তিশালী স্ক্যান ইঞ্জিনটি ভাইরাস, ওয়ার্ম, ট্রোজান, র‍্যানসামওয়্যার, রুটকিটস এবং স্পাইওয়্যার থেকে সমস্ত রকম ম্যালওয়্যারগুলোকে রিয়েল-টাইম শনাক্তকরণ করে তাদের চিরতরে অপসারণ নিশ্চিত করে।

এছাড়া এই এন্টিভাইরাসটি ইন্টারনেট ব্রাউজিং ক্ষেত্রেও সুরক্ষা প্রদান করে থাকে। ইন্টারনেট জালিয়াতি থেকে আপনাকে বাঁচায়। এর এন্টি-ফিশিং টেকনোলজি ফিশিং ওয়েবসাইটগুলো শনাক্ত করে ব্লক করে দিয়ে আপনার ডেটা চুরি হওয়া রোধ করে এবং এর এন্টি-ফ্রড টেকনোলজিতে থাকা উন্নত ফিল্টারিং সিস্টেম যা স্ক্যাম ওয়েবসাইটগুলোর আচরণ শনাক্ত করে আপনার আর্থিক ডেটা চুরি হওয়া রোধ করে।


অ্যাভাস্ট ফ্রি এন্টিভাইরাস Avast Free Antivirus

আমার তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা অ্যাভাস্ট এন্টিভাইরাসটি ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বিশ্বস্ত এন্টিভাইরাস। এটি ইন্সটল করা সহজ এবং ব্যবহার করাও সহজ। ভাইরাস, ম্যালওয়্যার, স্পাইওয়্যার, র‍্যানসমওয়্যার এবং ফিশিং পেজ গুলো শনাক্ত করে সঙ্গে সঙ্গে ব্লক করে দিতে এই বুদ্ধিমান এন্টিভাইরাসটির কোন জুড়ি নেই। অ্যাভাস্ট এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারটি স্মার্ট অ্যানালাইটিকস ব্যবহার করে ক্ষতি হওয়ার আগেই বাইরে থেকে আসা হুমকিগুলোকে থামিয়ে দিয়ে আপনাকে সুরক্ষা প্রদান করে থাকে।

এছাড়া এই এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারে রয়েছে সাইবার ক্যাপচার, ওয়াইফাই ইন্সপেক্টর, স্মার্ট স্ক্যানার মত ফিচার। পাশাপাশি অ্যাভাস্ট এন্টিভাইরাস সব ব্রাউজারেই ইউআরএল প্রটেকশন সুবিধা দিয়ে থাকে। যে সকল ব্যক্তিরা কম্পিউটারে ফুল স্ক্রিনে গেম খেলতে, মুভি দেখতে ভালোবাসেন তাদের জন্য রয়েছে ডু নট ডিস্টার্ব মোড।


পাণ্ডা ফ্রি এন্টিভাইরাস Panda Free Antivirus

আমার তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা পাণ্ডা এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারটির জনপ্রিয়তা ফ্রি এন্টিভাইরাসের জগতে দিন দিন বেড়েই চলেছে। সহজ সরল সেটিংসের জন্য এই এন্টিভাইরাসটি ব্যবহার করা আপনার পক্ষে খুব সহজ। এর পাশাপাশি এই এন্টিভাইরাসটি আপডেট করার ব্যাপারে আপনাকে কোন চিন্তা করতে হবে না কারণ এই এন্টিভাইরাসটি সমস্ত কাজ ক্লাউড নেটওয়ার্ক থেকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।

পাণ্ডা ফ্রি এন্টিভাইরাস

এই বিনামূল্যের এন্টিভাইরাসে থাকা ফিচারগুলো টাকা দিয়ে কেনা প্রিমিয়াম এন্টিভাইরাসে থেকে থাকে। যে কারণে এই এন্টিভাইরাসটি দ্রুত জনপ্রিয়তা লাভ করছে। যেকোন ম্যালওয়্যার এবং স্পাইওয়্যারের বিরুদ্ধে এই এন্টিভাইরাসটি রিয়েল-টাইম সুরক্ষা দিয়ে থাকে পাশাপাশি আপনি আপনার ইচ্ছে মত আপনার পার্সোনাল কম্পিউটারকে স্ক্যান করতে পারবেন। রয়েছে ইউএসবি ড্রাইভ স্ক্যান করার সুবিধা যে কারণে ইউএসবি ড্রাইভ থেকে ম্যালওয়্যার আক্রমণ থামিয়ে দেয়।

আর রয়েছে পাণ্ডা রেসকিউ কিট যা একটি ফ্রি পিসি রিকভারি সিস্টেম যার সাহায্যে আপনি এডভান্স স্ক্যান করতে পারবেন এবং রেসকিউ ইউএসবি ড্রাইভ তৈরি করে আপনার কম্পিউটারকে সুরক্ষিত রাখতে পারবেন। এছাড়া মাল্টিমিডিয়া গেমিং মোড ব্যবহার করে কোন ঝামেলা ছাড়াই আপনি মুভি দেখতে এবং গেম খেলত পারবেন।


সর্বশেষে একটাই কথা শুধুমাত্র এন্টিভাইরাস ব্যবহার করলেই যে আপনার পার্সোনাল কম্পিউটার সুরক্ষিত থাকবে তা কিন্তু নয়। আপনার কম্পিউটারে অন্য কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করার আগে সেই সফটওয়্যারটির উৎস ও নির্মাতা সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিন। নিশিচত হয়ে তবেই আপনার কম্পিউটারে ইন্সটল করুন। আর ক্রাক করা সফটওয়্যার ব্যবহার করা থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। কারণ বেশির ভাগ ক্রাক সফটওয়্যারের ইন্সটলেশন ফাইলের ভিতরে ভাইরাস, ম্যালওয়্যার থাকে।

লেখাটি ভালো লাগলে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না এবং লেখাটি আপনার কোন উপকারে এলে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Scroll to Top